ছুটি রিসোর্ট | Chuti Resort All Details Information.
chuti resort

ছুটি রিসোর্ট | Chuti Resort All Details Information.

ছুটি রিসোর্ট (chuti resort) প্রাকৃতিক পরিবেশে সবুজে সমাদৃত একটি ওয়াল্ড ক্লাসিক রিসোর্ট। ঢাকার অদূরে গাজীপুরের ভাওয়াল জাতীয় উদ্যান এর গাঁ ঘেঁষে সুকুন্দি গ্রামে প্রায় ৫০ বিঘা জমির উপর অবস্থিত ছুটি রিসোর্ট। যা ব্যস্ত এই জীবনে ছুটির সময়গুলোকে নিজ পরিবারদের সাথে আনন্দে উপভোগ করার জন্য ছুটি রিসোর্টের জুড়ি নেই।

ছুটি রিসোর্ট আপনি যা যা উপভোগ করবেন

মূলত ছুটির দিনে অবসর সময় কাটানোর কথা চিন্তা করেই এ রিসোর্টের নাম করন করা হয়েছে ছুটি রিসোর্ট। এখানে আছে সুইমিংপুল যেখানে আপনি সাঁতার কাটতে পারবেন অবিরাম। তবে বর্তমানে পর্যটকদের প্রধান আকর্ষণ হচ্ছে লেকের পাড়ে মাছ শিকার! এখানে আছে মোট ৩টি লেক যেখানে দর্শনার্থীরা ইচ্ছে মতো মাছ ধরতে পারে।

সারাদিন পাখির কলরবে আপনি মেতে থাকবেন প্রতিটি মুহূর্ত। আর সন্ধ্যা নামলেই কানে ভেসে আসে শিয়ালের হাঁক, বিরল প্রজাতির বাদুর, জোনাকি পোকার আলো মিছিল, আতশবাজি ও ঝিঁঝিঁ পোকার হৈচৈ! আর ভরা পূর্ণিমার সময় রাতের আকাশ চারিদিক আলোকিত থাকার ফলে রিসোর্টের নিয়ম অনুসারে চাঁদনী রাতে এখানে কোন বিদ্যুতের আলো জ্বালানো হয় না।

চাঁদনী এই রাতে আপনি মেতে উঠতে পারেন বন্ধুদের নিয়ে কোন এক জমপেশ আড্ডায় অথবা প্রিয় মানুষের হাতে হাত ধরে উপভোগ করতে পারেন ভরা জ্যোৎস্নাময় রাতটি। আর একটা কথা না বললেই নয় যে, দর্শনার্থীদের জন্য রিসোর্টের ভিতরের ফরমালিন মুক্ত মৌসুমি ফলগুলো একদম ফ্রি। আপনার যত খুশি আপনি গাছ থেকে নিয়ে খেতে পারেন এই বিষ মুক্ত ফল যা আমাদের ঢাকা শহরে বর্তমানে কোথাও পাওয়াই যায় না।

রিসোর্টে আছে বিরল প্রজাতের সংরক্ষিত বৃক্ষের বন। আর এ বনে টানানো আছে তাবু যেখানে আপনার বন্ধুরা মিলে একসাথে সময় উপভোগ করতে পারেন।

বিনোদন ও অন্যান্য সুবিধা

ছুটি রিসোর্টে (chuti resort) ছোট এবং বড়দের সব ধরণের বিনোদনের কথা বিবেচনা করে এখানে আছে বিশাল ২ টি খেলার মাঠ। যেখানে ব্যাডমিন্টন , ক্রিকেট , ফুটবলসহ অন্যান্য সব ধরনের খেলা যায় এবং ছোটদের জন্য আছে কিডস জোন, ফ্রি ওয়াইফাই।

সুইমিংপুলে সাঁতার, মিনি চিড়িয়াখানা, লেকের পাড়ে আছে নৌ ভ্রমণের সুবিধা ও মাছ ধরার ব্যবস্থা । আরো আছে হার্বাল গার্ডেন। যেখানে আছে বিরল প্রজাতির নাম না জানা বহু ঔষধি গাছগাছড়া। আছে আধুনিক রেস্টুরেন্ট। ২টি পিকনিক স্পট যেখানে অনায়াসে পিকনিক করতে পারবেন আপনার পরিবারের সদস্যদের নিয়ে।

এবং আছে গ্রামীণ পিঠা ঘর। এখানে আছে দুইটি কনফারেন্স রুম যেখানে বাংলা, চাইনিজ, ইন্ডিয়ান, থাই ও কন্টিনেন্টাল খাবার পাওয়া যায়।

কটেজ সমূহ

ছুটি রিসোর্টে এসি ও নন এসি ছোট-বড় মোট ২১টি কটেজ আছে। তবে কটেজগুলো সাধারণত দুই ধরণের। যারা গ্রামীণ আবহে নিরিবিলি স্বাচ্ছন্দে থাকতে চায় তাদের জন্য আছে কাঠ ও ছনের তৈরী কটেজ। আর অন্যথায় আছে শহুরে ইট ও বালু সংমিশ্রনে তৈরী কটেজ। কটেজ গুলো হলো :

  • উডেন কটেজ
  • ভাওয়াল কটেজ
  • ফ্যামিলি কটেজ
  • ঐতিহ্য কটেজ
  • প্রিমিয়াম ডুপ্লেক্স ভিলা
  • ডুপ্লেক্স কটেজ
  • ডুপ্লেক্স টুইন কটেজ
  • প্রিমিয়াম টুইন কটেজ
  • প্লাটিনাম কিং
  • এক্সিকিউটিভ স্যুট
  • রয়েল স্যুট
  • ডরমিটার

ছুটি রিসোর্ট এর কটেজ সম্পর্কে আরো বিস্তারিত জানতে এখানে ভিজিট করুন

ছুটি রিসোর্টের কটেজগুলো আগে থেকে বুকিং করতে চাইলে সরাসরি যোগাযোগ করুন এই নাম্বারেঃ

ঠিকানাঃ ছুটি রিসোর্ট, আমতলী জয়দেবপুর, গাজীপুর।
মোবাইলঃ ০১৭৭৭১১৪৪৮৮, ০১৭৭৭১১৪৪৯৯, ০১৯৫১৫৩৭৭৭৭, ০১৯৫১৫০৮৮৮৮
ওয়েবসাইটঃ www.chutiresort.com
ইমেইলঃ info@chutibd.com  
ফেসবুক পেইজঃ Facebook.com/chutiresort  

অথবা ছুটি রিসোর্টের কর্পোরেট অফিসে এসে সরাসরি যোগাযোগ করতে পারেনঃ

বনলতা ভিলা, লেভেল- এ/৩
বাড়ি- ১০৫, রোড- ০৪, ব্লক- বি, বনানী, ঢাকা- ১২১৩।

খাবার ব্যবস্থা

ছুটির বিশেষ খাবার, বাঙ্গালি খাবার, ইন্ডিয়ান স্পাইসি ফুড, সকালের নাস্তা, তাজা ফলের জুস, পানি, আইসক্রিম, কোমল পানিয়, বারবিকিউ, সন্ধ্যাভোজন, বাঙ্গালি নানা প্রকার পিঠা।

অতিথিদের জন্য সকালের নাস্তা হিসেবে তৈরী করা হয় গ্রাম ঐতিহ্য চিতই পিঠা বা চালের নরম রুটি, নানা প্রকার দেশি সবজি, ডাল ভুনা ও মুরগি মাংস।

ডাইনিং এর পাশে উন্মুক্ত একটি স্থানে খাওয়ার স্থান আছে যার পাশে আছে খুব সুন্দর একটি লেক। যেখানে আছে সব রকম খাবার আয়োজন ব্যবস্থা। লেকের ধারে এই রেস্টুরেন্টগুলোর ডিজাইন করা হয়েছে কাঠের ফ্রেম, গ্লাস এবং কালারফুল উজ্জ্বল লাইট দ্বারা। বিশেষ দিনগুলোতে অতিথিদের জন্য খুব জমজমাট খাবার ডাইনিং এটি।

কনফারেন্স রুম

ছুটি রিসোর্টের ভিতরে আছে ছায়াবীথি ও সুকুন্দি নামের ২টি কনফারেন্স হল যেখানে কর্পোরেট ট্রেনিং ও ওয়ার্কশপ করা হয়। এবং পুলের পাশে আছে ১টি ক্যাফে।

ছায়াবীথি

সুইমিংপুলের কাছাকাছি এই রিসোর্টটি একটি বাঙ্কুইট হল। বিভিন্ন ইভেন্ট বা অনুষ্ঠানে এখানে বিভিন্ন প্রকার রান্না করা হয়। বিশেষ অনুষ্ঠান, পার্টি বা অফিসের মিটিং এর ক্ষেত্রে  ছায়াবীথির তুলনা নেই। থিয়েটার এর মতো ২০০ লোক একসাথে বসে খেতে পারবে সেখানে। বাংকুইট হল ছায়াবীথির একদিনের ভাড়া প্রায় ৩০০০০ টাকা। এর মধ্যেই ১০% সার্ভিস চার্জ ও১৫% ভ্যাট সংযুক্ত।

সুকুন্দি

ছুটি রিসোর্টে প্রাকৃতিক সৌন্দর্য দ্বারা বেষ্টিত ও সম্পূর্ণ আধুনিক রাষ্ট্র- শিল্প সুবিধা সহ ব্যবসা, সভা, বিয়ে, পারিবারিক সমাবেশ, কর্পোরেট ইভেন্ট সহ নানা আয়োজনের নিখুঁত স্থান সুকুন্দি।এখানে প্রায় ১০০ টি সিটে ১০০ জন লোক একসাথে বসতে পারবে। প্রতিদিন সুকুন্দির ভাড়া প্রায় ২০,০০০ টাকা। তবে এর মধ্যেই ১০% সার্ভিস চার্জ ও ১৫% ভ্যাট সংযুক্ত।

ছুটি রিসোর্টে (chuti resort) বিভিন্ন প্যাকেজ

ছুটি রিসোর্টে পরিবার বন্ধুদের নিয়ে প্যাকেজ অনুসারে থাকা-খাওয়ার সুব্যবস্থা আছে। যেখানে ছোট-বড় সকলেই নির্বিশেষে ছুটির সময়টিকে আনন্দের সাথে উপভোগ করতে পারেন। একটি নির্দিষ্ট অর্থে রিসোর্টটিতে থাকা এবং খাওয়া সব কিছু উপভোগ করা যায়।

ডে আউট প্যাকেজটি ২ ধরনের। ফামিলি ডে আউট প্যাকেজ ও কর্পোরেট ডে আউট প্যাকেজ।

রুম/বাসস্থান

বেশি সময় ধরে থাকার জন্য এখানে আছে প্রকৃতি নির্ভর সব ব্যবস্থা। থাকার জন্য আছে এসি ও নন এসি রুম। অবসরে খেলার জন্য আছে খোলা জায়গা। রুমের সাথেই আছে লবি। সারাদিনের এই প্যাকেজে আছে আরও নানা ধরনের সুবিধা। এক একটি রুমে সর্বনিম্ন ৪জন ব্যাক্তি থাকা যাবে।

বুকিং ও খরচ

সারাদিনের ডে আউট এই প্যাকেজটিতে জন প্রতি ২৫৩০ টাকা থেকে শুরু। এবং আপনাকে আগে থেকেই বুকিং দিয়ে যেতে হবে।

বিভিন্ন অফার সমূহ

ছুটি রিসোর্ট থেকে বিভিন্ন সময়কালীন মোট ৪ ধরনের অফার প্রদান করে থাকে দর্শনার্থীদেরকে। অফারগুলো হলঃ

  1. Express Your Love With Chuti resort.
  2. Winter Special package for students.
  3. Special Couple Package for day stay.
  4. Special Couple Package for Night.

কিভাবে যাবেন এই রিসোর্টটিতে?

খুব সহজে আপনি এবং পরিবারের সকলকে নিয়ে ছুটির দিনগুলোতে চলে যেতে পারেন এই রিসোর্টে। ঢাকা থেকে বিভিন্ন উপায়ে ছুটি রিসোর্ট যাওয়া যায়।

ঢাকার গুলিস্তান বা মহাখালী থেকে বিআরটিসি অথবা অন্য যেকোনো বাসে করে গাজীপুর শহর আসতে হবে। সেখান থেকে রিক্সায় ৩ কিলোমিটার গেলেই আমতলী বাজার। আর এই আমতলী বাজারের পাশেই ছুটি রিসোর্ট ও পিকনিক কর্নার।

অথবা আরও সহজ উপায়ে যেতে চাইলে আপনাকে প্রথমে গাজীপুর চৌরাস্তায় এসে গাজীপুর ডিসি অফিসের সামনে রাজবাড়ি যেতে হবে। সেখান থেকে সিএনজি যোগে মাত্র ৩ কিলোমিটার দুরেই আমতলী বাজারের কাছেই সুকুন্দি গ্রাম। এই সুকুন্দি গ্রামেই ছুটি রিসোর্ট।

আপনি যেখান থেকেই আসুন না কেন ছুটি রিসোর্ট যেতে হলে আপনাকে অবশ্যই গাজীপুর দিয়েই যেতে হবে।

ঢাকার পাশে গাজীপুরের জনপ্রিয় রিসোর্ট সম্পর্কে জানতে, ভিজিট করুন: 

আমাদের এই পোস্টটি যদি আপনার ভ্রমনের ক্ষেত্রে কিছুটা হলেও উপকারে আসে এবং ভালো লেগে থাকে তাহলে পোস্টটি লাইক দিতে ভুলবেন না। এবং পোস্টটি শেয়ার করে আপনার আশেপাশের সবাইকে জানার সুযোগ করে দিন।


বি.দ্র. একটি সুন্দর প্রকৃতি ও পরিবেশ আমাদের দেয় একটি প্রাণবন্ত জীবন। আর এই সুন্দর পরিবেশটিকে সংরক্ষণ করার দায়িত্বটাও একান্ত আমাদের। তাই দয়া করে সেখানে কেউ মাটিতে কিছু ফেলবেন না,গাছপালা ছিঁড়বেন না এবং পরিবেশ নোংরা করবেন না। সর্বোপরি আমাদের এই সুন্দর পরিবেশকে আরও সুন্দর রাখার চেষ্টা করবেন।  

ভ্রমণ সম্পর্কিত নতুন নতুন জায়গার আপডেট পেতে আমাদের ফেসবুক পেইজে লাইক দিয়ে একটিভ থাকুন।

আপনার পছন্দের জায়গাগুলো যেখানে আপনি এখনও ভ্রমন করেন নি তবে সেখানে যেতে চান! এরকম নিজের সব পছন্দের স্থানগুলোর নাম লিখে ও কিভাবে যেতে হবে তার সকল তথ্যসমূহ জানতে হলে আমাদের ফেসবুক গ্রুপে হেল্প পোস্ট করুন। আমরা আপনার পছন্দের স্থানগুলোর সকল তথ্য দিতে সচেষ্ট থাকবো সর্বক্ষণ।

আর হ্যা, অবশ্যই আপনার বিশ্ব ভ্রমন অভিজ্ঞতাটি আমাদের ফেসবুক গ্ৰুপে শেয়ার করতে ভুলবেন না।

This Post Has One Comment

Leave a Reply