কাপ্তাই-রাঙামাটি কিভাবে যাবেন ভাবছেন ? তাহলে এ পোস্ট আপনার জন্যই
কাপ্তাই লেক ভ্রমণ

কাপ্তাই-রাঙামাটি কিভাবে যাবেন ভাবছেন ? তাহলে এ পোস্ট আপনার জন্যই

অনেকেই মনে করে যে বাংলাদেশে আবার ঘুরার কি আছে? উত্তরে আমি বলি যে হ্যা, এ দেশে অনেক কিছুই আছে যা আমাদের সকলের অজানা। তাই অজানাকে আরও জানতে হবে।

ঠিক এরকম একটা সুন্দর ও মনোরম পরিবেশ দিয়ে মহান আল্লাহ তায়ালা আমাদের জন্য খুব সুন্দর করে সাজিয়ে তুলেছে যে শহর সেটি হচ্ছে রাঙামাটি কাপ্তাই সংযোগ সড়ক | 

জায়গাটি এতো সুন্দর যে নিজের চোখে কেউ না দেখলে বুঝবেই না। আর সেখানে যেতে খরচ ও অনেক কম লাগে।

রাঙামাটি কাপ্তাই

সুন্দরের এক অপরূপ লীলাভূমি হলো রাঙামাটি। যেখানে যতদূর চোখ যায় শুধু সবুজ আর সবুজ। আবার কালের পরিবর্তন হলে চোখ দিয়ে তাকালেই পাহাড়ের উপর শুভ্রতার ছোয়া।

অন্য রকম এক ভালো লাগার অনুভূতি কাজ করে তখন। সেখানে পাহাড়ে উঠা, নদীতে নৌকা ভ্রমণ, সবুজের মাঝে রঙ মাতানো খেলা, মেঘের রাজ্যে নিজেকে হারিয়ে ফেলার মতো চোখ জুড়ানো সব স্থান। যা আপনাকে আকুল করে তুলবে।

নজর কাড়া স্থানগুলো

সেখানে গেলেই সবার প্রথম নজর কাড়ে আসামবস্তির আর্জেটিনা ব্রীজ। এছাড়াও আছে বনভান্তের জন্মস্থান, মন্দির, দর্নশীয় স্থান, লেক, পাহাড়, আকা বাঁকা উচু নিচু রাস্তা। আপনি চাইলে সেখানে কেয়াকিং ও করতে পারেন। ৩০০ থেকে ৫০০ টাকা নিবে।

এছাড়াও রাঙামাটি শহর থেকে শুভলং ঝর্না দেখতে চাইলে নৌ পথে যেতে হবে। ইঞ্জিন চালিত ট্রলার রিজার্ভ করে গেলে ভাড়া ১২০০ থেকে ৩০০০ টাকা নিবে। শুভলং যেতে হয় কাপ্তাই লেকের উপর দিয়ে।

অনেকেরই হয় তো অজানা যে কাপ্তাই লেক দক্ষিণ এশিয়ার সবচেয়ে বড় কৃত্তিম লেক।রাঙামাটি শহর থেকে দোয়েল চত্তর বা তাবালছড়ি বাজার থেকে সিএনজি নিলে ভাড়া মাত্র ১৫০ টাকা যেতে পারবেন।

এগুলো ছাড়া ও আরও আছে ঘাগড়া ঝর্না। এই এলাকায় ছোট বড় ৫ থেকে ৬টি ঝর্না আছে। রাঙামাটি শহর থেকে সিএনজি করে ঘাগড়া ঝর্নায় যাওয়া যায়। ভাড়া নিবে ২০০ থেকে ২৫০ টাকা। এছাড়াও কাপ্তাই লেক, কাপ্তাই প্রজেক্ট, টি গার্ডেন, ডিসি বাংলা, দুই পাহাড়ের মাঝে কর্ণফুলী নদী,বনবিহার ইত্যাদি জায়গা গুলোতে পর্টযকদের ভিড় লেগেই থাকে সারা বছর ধরে। রাঙামাটি এলাকাটি প্রতিটা সিজনে বিভিন্ন সাজে রুপ নেয়। যা দেখে সকলের মন ও চোখ দুটি জুড়ে যায়।

কিভাবে যাবেন ভাবছেন তাই না?

খুব সহজেই যেতে পারেন আপনার এই স্বপ্নের রাজ‍্যে।

আগেই বলে রাখা ভালো যে রাঙামাটি কাপ্তাই ২ভাবে যাওয়া যায়। তবে যারা ঢাকা থেকে যাবে তারা সায়েদাবাদ, কলাবাগান, ফকিরাপুল, গাবতলি থেকে শ্যমলী, হানিফ, ইউনিক, এস আলম বাসে উঠে সরাসরি রাঙামাটি যেতে পারবেন। নন এসি ভাড়া মাত্র ৬২০ টাকা আর এসি ভাড়া ৮০০ টাকা।

আপনার প্রিয় মানুষকে নিয়ে ঘুরতে যাওয়ার এটাই সবচেয়ে বড় সুযোগ। তাই আর কেনো অযথা সময় অপচয় করবেন? এখনই ঘুরে আসুন এবং নিজের চোখ ও মনকে ভোরিয়ে তুলুন নতুন আমেজে।

রাঙামাটি জেলার আরো কিছু অসম্ভব সুন্দর ও জনপ্রিয় জায়গা সম্পর্কে জানতে ভিজিট করুন:


বি.দ্র: আপনার পছন্দের জায়গাগুলো যেখানে আপনি এখনও ভ্রমন করেন নি তবে সেখানে যেতে চান! এরকম নিজের সব পছন্দের স্থানগুলোর নাম লিখে ও কিভাবে যেতে হবে তার সকল তথ্যসমূহ জানতে হলে আমাদের ফেসবুক গ্রুপে হেল্প পোস্ট করুন। আমরা আপনার পছন্দের স্থানগুলোর সকল তথ্য দিতে সচেষ্ট থাকবো সর্বক্ষণ।

আর হ্যা, অবশ্যই আপনার বিশ্ব ভ্রমন অভিজ্ঞতাটি আমাদের ফেসবুক গ্ৰুপে শেয়ার করতে ভুলবেন না।

Leave a Reply