সেন্টমার্টিন ঘুরে আসুন | সেন্ট মার্টিন ভ্রমণ গাইড
সেন্ট মার্টিন

সেন্টমার্টিন ঘুরে আসুন | সেন্ট মার্টিন ভ্রমণ গাইড

খুব যখন নিজেকে একা মনে হবে তখন নিজের প্রশান্তির জন্য ঘুরে আসুন কোনো এক অজানা শহরে। যেখানে প্রকৃতি আপনার সাথে কথা বলবে। সমুদ্রের পানি হাতছানি দিয়ে আপনাকে ডাকবে। গাছপালা আপনার ছায়া হয়ে দাড়াবে। পাখির কলকাকলী ডাক আপনার কানে শ্রুতিমধুর হয়ে থাকবে, মৃদু বাতাসে প্রাণ জুড়ে যাবে। যেখানে প্রকৃতি হবে আপনার পরম বন্ধু।

ঠিক এরকম একটি অজানা শহরের নাম হলো সেন্ট মার্টিন যার নাম শুনলেই চোখের সামনে ভেসে বেড়ায় পৃথিবীর বুক চিড়ে এক অপূর্ব প্রাকৃতিক লীলাভূমি।

সেন্ট মার্টিন

বাংলাদেশের এক মাত্র প্রবাল দ্বীপ সেন্ট মার্টিন। স্থানীয় ভাষায় সেন্ট মার্টিন “নারিকেল জিঞ্জিরা” বলে পরিচিত। অপূর্ব প্রাকৃতিক সৌন্দর্য্যে ভরপুর সেন্ট মার্টিন। বালি, পাথর, প্রবাল,জীব বৈচিত্রকে ঘিরে গড়ে ওঠা সপ্নময় সেন্ট মার্টিন। প্রবাল সমৃদ্ধ এই সচ্ছ পানিতে জোলি ফিশ সহ হরেক রকমের সামুদ্রিক মাছ, কচ্ছপ যেন অনন্য রহস্যে ঘেরা।

সেন্ট মার্টিন গেলেই প্রথম যেটা চোখে পড়ে তা হচ্ছে নিরাকার জলসমুদ্রের উপর সুবিশাল আকাশ। অসীম নীল আকাশের সাথে সমুদ্রের নীল পানির মিতালি যেনো চোখে পরার মতোই। একটু হাটলেই সারি সারি বাধানো নারিকেল গাছ, ছোট বড় দীপ সেন্ট মার্টিনকে অনন্য করে রেখেছে। আনন্দময় ভ্রমণ আপনার মনকে মোহিত করে তুলবে সারাক্ষণ।

সচ্ছ নীল পানিতে গা ভেজানো, যা আপনার মনকে শীতল করে তুলবে। সুবিস্তৃত জলাধার ও যত দূর চোখ যায় সুবিশাল গাঢ় নীল আকাশ আপনার শরীর ও মনের ক্লান্তি কমিয়ে দিবে। প্রায় প্রতি বছর সেন্ট মার্টিনে কয়েক লাখ পর্যটন আসে ভ্রমণে।

সেন্ট মার্টিনের জনপ্রিয় খাবার

এখানকার সবচেয়ে প্রসিদ্ধ খাবার হচ্ছে ডাব, যা একাধারে মিষ্টি আর সুসাদু।এখানে আমাদের নাম অজানা অনেক মাছ আছে যার স্বাদ অমৃত। যেমন কোরাল, সুন্দরী, পোয়া, ইলিশ, রূপচাঁদা,ইত্যাদি। আছে নাম না জানা অনেক অপরিচিত শুটকি যেমন লইটা, ছুড়ি, রূপচাঁদা, ইত্যাদি বহু প্রজাতির শুটকি।

সমুদ্রে আপনি চাইলে স্কুবা করতে পারেন সমুদ্রের তলদেশ ঘুরে বেড়ানোর জন্য। জনপ্রতি ২০০০—২৫০০ টাকা করে নিবে।

সেন্ট মার্টিন ভ্রমন খরচ

নিশ্চয়ই ভাবছেন যে একবার ঘুরেই আসি এত্তো সুন্দর একটা প্রানবন্ত জায়গা থেকে!

হ্যা, তাহলে এখনি ঘুরে আসুন এই সুন্দর মনোরম পরিবেশ থেকে।

খুব কম খরচেই যেতে পারেন এতো সুন্দর এই জায়গায়।

ঢাকার ফকিরাপুল ও সায়েদাবাদ থেকে শ্যামলী, ঈগল, এস আলম, গ্রিন লাইন ইত্যাদি বাসে করে ঢাকা থেকে টেকনাফ এ চলে যেতে পারবেন। ভাড়া মাত্র ৯০০ টাকা। টেকনাফ থেকে সিএনজি অথবা জাহাজে করে চলে যেতে পারেন আপনার এই সপ্নময় দেশে।

আর দেরি না করে এখনই ঘুরে আসুন তাহলে।

কক্সবাজার জেলার আরো কিছু অসম্ভব সুন্দর জায়গা সম্পর্কে জানতে ভিজিট করুন:

আমাদের পোস্টটি যদি কিছুটা হলেও ভালো লাগে তাহলে অবশ্যই পোস্টটি শেয়ার করবেন এবং অন্যদের জানার সুযোগ করে দিন।

এবং অবশ্যই আপনার ভ্রমণ অভিজ্ঞতা আমাদের সাথে ফেইসবুক গ্রুপ শেয়ার করবেন। আপনি আমাদের সাথে ফেইসবুক এ কানেক্ট থাকতে পারেন ।


বি.দ্র: আপনার পছন্দের জায়গাগুলো যেখানে আপনি এখনও ভ্রমন করেন নি তবে সেখানে যেতে চান! এরকম নিজের সব পছন্দের স্থানগুলোর নাম লিখে ও কিভাবে যেতে হবে তার সকল তথ্যসমূহ জানতে হলে আমাদের ফেসবুক গ্রুপে হেল্প পোস্ট করুন। আমরা আপনার পছন্দের স্থানগুলোর সকল তথ্য দিতে সচেষ্ট থাকবো সর্বক্ষণ।

Leave a Reply